সিলেট সরকারি কলেজ

0
143

সিলেট সরকারি কলেজ বাংলাদেশের সিলেট জেলার একটি পুরোনো ও ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। সিলেট শহরের টিলাগড় এলাকায় সিলেট-তামাবিল মহাসড়কের পার্শ্বে অবস্থিত এই কলেজটি ১৯৬৪ সালে প্রতিষ্ঠিত।[৪] কলেজটিতে বর্তমানে উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণি ও স্নাতক (পাস) শ্রেণিতে শিক্ষা দান করা হয়।

বিভাগ ও অনুষদ
এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ২ বছর মেয়াদি উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণী ও ৩ বছর মেয়াদী স্নাতক (পাস) শ্রেণীতে শিক্ষা দান করা হয়। এছাড়াও ২০১৮ সাল থেকে কলেজে পাচঁটি বিষয়ের উপর ৪ বছর মেয়াদী স্নাতক কোর্স চালু হয়েছে।

একাডেমিক সুবিধা
একাডেমিক ভবন
বর্তমানে এই কলেজে ২ টি একাডেমিক ভবন রয়েছে। এগুলোতে শ্রেণী পাঠ দান ছাড়াও প্রশাসনিক কাজ করা হয়।
এছাড়াও কলেজে একটি অডিটোরিয়াম ভবন রয়েছে।

গ্রন্থাগার
কলেজের মূল একাডেমি ভবনের ২য় তলায় স্বল্প পরিসরে একটি লাইব্রেরী রয়েছে। বর্তমানে এই লাইব্রেরীতে ৫,০০০-এর বেশি বই রয়েছে।

বোটানিক্যাল গার্ডেন
কলেজের মূল একাডেমিক ভবনের তৃতীয় ব্লকের সামনে বেশ কিছু দুর্লভ গাছ সমৃদ্ধ একটি বোটানিক্যাল গার্ডেন রয়েছে যেটি কলেজের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগ রক্ষনাবেক্ষন করে থাকে।

কলেজের সুযোগ সুবিধা

ছাত্রাবাস সম্পাদনা
বর্তমানে এই কলেজে ২টি ছাত্রাবাস রয়েছে। একটি ছাত্রদের ও অপরটি ছাত্রীদের জন্য। ছাত্রদের ছাত্রাবাসটি দ্বিতল বিশিষ্ট ও ২টি ব্লকের সমন্বয়ে গঠিত। অপর দিকে ছাত্রীদের ছাত্রাবাসটি ৪ তলা বিশিষ্ট একটি আধুনিক স্থাপনা। তবে, ছাত্রদের জন্য নির্ধারিত ছাত্রাবাসটি ছাত্র-সংঘর্ষের ফলে অগ্নিদগ্ধ হয়ে বর্তমানে অব্যবহৃত অবস্থায় রয়েছে।[২]

খেলার মাঠ সম্পাদনা
কলেজ ক্যাম্পাসের মধ্যেই রয়েছে কলেজের নিজস্ব খেলার মাঠ। এখানে শিক্ষার্থীরা খেলাধুলা করা ছাড়াও কলেজের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

মসজিদ সম্পাদনা
কলেজ ক্যাম্পাসের মধ্যেই রয়েছে কলেজের নিজস্ব মসজিদ। এখানে শিক্ষার্থীরা ছাড়াও কলেজের শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও পার্শ্ববর্তী এলাকার লোকজন নামাজ আদায় করে থাকে।

ছাত্র-ছাত্রী পরিবহন কলেজের ছাত্র-ছাত্রী এবং কলেজের অর্থায়নের সহযোগিতায় দুটি বাস রয়েছে যেগুলো ছাত্র-ছাত্রীদের পরিবহনে ব্যবহৃত হয়। একটি বাস কলেজ হতে বন্দর বাজার, জিতু মিয়া পয়েন্ট সহ আম্বরখানা হয়ে কলেজে পৌছায় এবং অপরটি কলেজ হতে বটেশ্বর পর্যন্ত ছাত্র-ছাত্রী পরিবহন করে থাকে।

সহ শিক্ষা কার্যক্রম
সিলেট সরকারি কলেজে বর্তমানে বিভিন্ন ধরনের সহশিক্ষা কার্যক্রম চালু রয়েছে:

বি. এন. সি. সি. – ময়নামতি রেজিমেন্ট এর অধীনে এই কলেজে বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্যাডেট কোর-এর একটি পুরুষ প্লাটুন রয়েছে।
রোভার স্কাউট – বাংলাদেশ স্কাউটস-এর অধীনে এই কলেজে একটি রোভার স্কাউট ইউনিট রয়েছে।
রেড ক্রিসেন্ট – বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি-এর অধীনে এই কলেজে একটি রেড ক্রিসেন্ট ইউনিট রয়েছে।

বিখ্যাত ব্যক্তি

প্রফেসর ড. আবদুর রব – ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও বাংলাদেশ রেড ত্রিসেন্ট সোসাইটির সাবেক প্রেসিডেন্ট;
সুলতান মোহাম্মদ মনসুর – সাবেক সাংসদ;
বদরউদ্দিন আহমদ কামরান – সিলেট সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র।
এম.ইলিয়াস আলী- সাবেক সাংসদ,সিলেট-২

বিঃ দ্রঃ উপরের লেখাটি বিশ্ব মুক্তকোষ উইকিপিডিয়া হতে তুলে ধরা হলো।কৃতজ্ঞতাঃ উইকিপিডিয়া।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে