পৃথিমপাশা নবাব বাড়ি

0
179

কুলাউড়ার ঐতিহাসিক পৃথিমপাশা নবাব বাড়ি!

ইতিহাস থেকে জানা যায়ঃ

১৭৯২ খ্রিস্টাব্দে ইংরেজ শাসকদের কর্তৃক নাগা কুকিদের বিদ্রোহ দমনে সিলেটের তৎকালীন কাজী মোহাম্মদ আলী খাঁন বলিষ্ট ভূমিকা রেখে ইংরেজদের সাহায্য করেন। এজন্য ইংরেজ সরকার খুশি হয়ে মোহাম্মদ আলীর ছেলে গৌছ আলী খাঁনকে ১২০০ হাল বা ১৪ হাজার ৪০০ বিঘা নিষ্কর জমি দান করেন এবং জমিদারী উপাধী দেন। পরবর্তীতে ইসলাম প্রচারে ভূমিকা রাখার জন্য মুঘল আমলে সম্রাট আরঙ্গজেব ১৭০৭ সালে ৫৩৬৩ একর জমি জমিদার পরিবারকে উপহার দেন। এরপর সম্রাট দ্বিতীয় আলমগীর ১৭৫৪ সালে ৪৩৮৭ একর জমি আরো বৃদ্ধি করে দেন। পরবর্তীতে আরো ৯৭৫ একর জমি ১৭৫৬ সালে দান করেন। খোরানিক মাদ্রাসা, বাড়ি, মসজিদ ও ধর্মীয় স্থাপনা তৈরির জন্য এই জমি উপহার করেন বলে জানা গেছে। উল্লেখ করা আবশ্যক মহারানী ভিক্টোরিয়া ভারতবর্ষে আগমন উপলক্ষে নবাব আলী আমজদ খানকে বৃটিশ সরকার সিলেটের শিক্ষানুরাগী ও জমিদার হিসাবে আমন্ত্রন করেন। সে সময়ে বৃহত্তর সিলেটের মধ্যে সবচেয়ে স্বনামধন্য, শিক্ষানুরাগী, দানশীল জমিদার ছিলেন গৌছ আলী খানের পৌত্র নবাব আলী আমজদ খাঁন। এসময় তিনি সমাজসেবাসহ জমিদার হিসেবে সারা বাংলা এবং আসামে ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেন।

সিলেটের বিখ্যাত আলী আমজদের ঘড়িঃ

আলী আমজদের ঘড়ি সিলেট শহরে অবস্থিত ঊনবিংশ শতকের একটি স্থাপনা, যা মূলত একটি বিরাটাকায় ঘড়ি একটি ঘরের চূঁড়ায় স্থাপিত। যখন ঘড়ির অবাধ প্রচলন ছিল না, সেসময় ১৮৭৪ খ্রিস্টাব্দে সিলেটের কীন ব্রীজের ডানপাশের্^ সুরমা নদীর তীরে এই ঐতিহাসিক ঘড়িটি নির্মাণ করেন পৃথিমপাশার জমিদার নবাব আলী আহমদ খান তাঁর ছেলে নবাব আলী আমজদের নামকরণে। পরবর্তীতে পিতার মৃত্যুর পর অসমাপ্ত ঘড়ির নির্মাণ কাজ সম্পূর্ণ করেন নবাব আলী আমজদ খান।

জমিদার বাড়িতে যারা এসেছিলেনঃ

মুঘল আমল থেকে অনেক জ্ঞানী গুণিরা পৃথিমপাশা জমিদার বাড়ির আতিথেয়তা গ্রহণ করেছেন। এরমধ্যে ১৯৫১ সালে ইরানের রাজা রেজা শাহ পেহলভী অন্যতম। তাঁর সাথে ছিলেন নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পূর্ব-পাকিস্তানের সেনা প্রধান জেনারেল আইয়ুব খান, পূর্ব-পাকিস্তানের গর্ভণর খাজা নাজিম উদ্দিন, প্রথম আমেরিকার রাষ্ট্রদূত হিলব্রেক, ত্রিপুরার মহারাজা রাধা কিশোর মানিক্য বাহাদুরসহ বহু ইংরেজসহ ভারতীয় উপমহাদেশের বিখ্যাত ইসলামী কবি-সাহিত্যিকদের পদাপর্ণ বেশি ঘটে।

সংগৃহীত

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে