চন্দ্রডিঙ্গা পাহাড়।।চন্দ্রডিঙা পাহাড়।।

0
365

“চন্দ্রডিঙ্গা পাহাড়”

রংছাতি ইউনিয়নের পাঁচগাঁও এর উত্তরে গারো পাহাড়ের
পাদদেশে ডিঙ্গাসদৃশ পাহাড়টি চন্দ্রডিঙ্গা নামে প্রাচীন যুগ হতে পরিচিত হয়ে আসছে। কথিত আছে যে, পৌরানিক যুগে হিন্দুদের দেবতা পদ্মা দেবীর সহিত চাঁদ সওদাগরের বিরোধ ছিল। স্থানটি পূর্বে কালিদহ সাগর নামে পরিচিত ছিল। চাঁদ সওদাগরের সপ্তডিঙ্গা কালিধর সাগরে পদ্মা দেবী তার পূজা না করায় ডুবিয়ে দিয়েছিল। চাঁদ সওদাগরের ডিঙ্গা এ অঞ্চলে ডুবেছিল, এ পৌরাণিক কাহিনীকে এ অঞ্চলবাসী সত্য বলেই মনে করে। তাদের বিশ্বাস ডুবে যাওয়া চাঁদ সওদাগরের ডিঙ্গার মাস্তুল গারো পাহাড়ের শিলাস্তরে অঙ্কিত হয়ে পূর্বের স্মৃতি বহন করছে। চন্দ্রডিঙ্গা নামক গ্রামটি সেই স্মৃতি চিহ্নের একটি। বর্তমানে স্থানটিতে ৭টি পাথরের নৌকার আকৃতি রয়েছে। এছাড়াও রংছাতি ইউনিয়ন এর সর্বশেষ উত্তরে রয়েছে মনোরম চোখ জুড়ানো গারো পাহার। গারো পাহাড়ের ছোট ছোট অংশগুলো স্থানীয়ভাবে টিলা নামেও পরিচিত।

তথ্যসূত্রঃ উইকিপিডিয়া

যাতায়াতঃঢাকা থেকে সরাসরি নেত্রকোণা অথবা কলমাকান্দা বাজার সদরে আসা যায়।কলমাকান্দা থেকে ৩ থেকে সাড় ৩ কিলোমিটারের ভেতরেই চন্দ্রডিঙ্গা পাহাড়।কলমাকান্দা থে ৫০/৬০ টাকা দিয়ে মোটর সাইকেল ভাড়া করে যাওযা যাবে।অথবা সুনামগঞ্জ শহর থেকে মোটর সাইকেল যোগেও উক্ত পাহাড়ে যাওয়া যায়।তবে সুনামগঞ্জ থেকে পাহাড়ের দূরত্ব প্রায় ৫০/৬০ কিলো হতে পারে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে